Loading...

ক্যান্সারের ৭টি লক্ষণ আগে থেকে জেনে নিন

যুগ পরিবর্তনের সাথে সাথে আমাদের দেশে ক্যান্সারের প্রবণতা অনেক বেড়ে গেছে। খাবারে ভেজাল সাথে জীবনযাত্রার পরিবর্তন এই ক্যান্সারের পরিমাণকে বহুগুণে বাড়িয়ে দিয়েছে। আগে যেমন মানুষ কায়িক পরিশ্রম করত এখন কায়িক পরিশ্রম কমে গিয়ে মানসিক পরিশ্রম অনেক বেড়ে গিয়েছে। বৈশ্বিক উষ্ণতার পরিবর্তন ও জলবায়ু এবং আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণেও ক্যান্সারের ঝুঁকি এখন আগের থেকে অনেক বেশি।

আসুন জেনে নেই ক্যান্সারের কিছু বিপদ সংকেত যা আগে থেকে জানলে রোগ নির্ণয় সুবিধা হবে ক্যান্সারের এই বিপদ সংকেত গুলো আগে থেকে আমাদেরকে জানিয়ে দেয় যে শরীরে কোন ক্যান্সার থাকতে পারে।

cancer

শরীরের সব অঙ্গ-প্রত্যঙ্গেই ক্যান্সার হতে পারে। তবে একেক ক্যান্সারের লক্ষণ একেক রকম। বিশেষজ্ঞরা গবেষণা করে ক্যান্সারের কিছু বিপত্সংকেতের কথা বলেছেন, যা শরীরে প্রকাশ পেলে বিশেষ সতর্ক হওয়া উচিত। এসব লক্ষণ থাকা অবস্থায় বা প্রাথমিক অবস্থায় রোগ নির্ণয় করে চিকিৎসা নিলে সুস্থ থাকা, এমনকি ক্যান্সার নামক মারণব্যাধি থেকেও অনেকাংশে মুক্ত থাকা যায়।

আসুন জেনে নেই ক্যান্সারের সেই 7 টি বিপদ সংকেত

এক.

শরীরের কোনো স্থান দিয়ে যদি অস্বাভাবিক রক্তক্ষরণ হয়, তাহলে সতর্ক হতে হবে। হয়তো এমনিতেই নাক দিয়ে রক্ত পড়ছে এবং তা দুই সপ্তাহ ধরে চলছে। অনেক সময় কাশির সঙ্গেও রক্ত যায়। যক্ষ্মার ক্ষেত্রে এমন উপসর্গ থাকলেও ফুসফুসের ক্যান্সারের সঙ্গে এর সম্পর্ক রয়েছে। পায়খানার রাস্তায় রক্তপাত হলে মলদ্বারের ক্যান্সার হওয়ার আশঙ্কা থাকে। অনেক সময় পাইলসের কারণেও হয়। তেমনি ঋতুস্রাবের রক্তপাতে কোনো ব্যতিক্রম হলেও একটু সতর্ক হতে হবে। যেমন—ঋতুস্রাবের সময় যদি খুব বেশি পরিমাণ রক্তপাত হয়, মাসের মাঝামাঝি যদি ঋতুস্রাব হয়, তাহলে সতর্ক হতে হবে। অনেকের দেখা যায় মেনোপজ হয়েছে, এর পরও রক্তপাত হয়েছে। সে ক্ষেত্রেও সতর্ক হতে হবে।

দুই.

শরীরের কোনো জায়গায় চাকা বা পিণ্ডের অস্তিত্ব দেখা দিলে এবং তা দুই সপ্তাহের বেশি স্থায়ী হলে সতর্ক হতে হবে, বিশেষ করে নারীদের স্তনে এ ধরনের লক্ষণ দেখা দিলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

তবে সব চাকা বা পিণ্ডই ক্যান্সার নয়। বিনাইন টিউমারের কারণেও অনেক সময় শরীরে নানা ধরনের চাকা হতে পারে; কিন্তু ম্যালিগনেন্ট টিউমার বা ক্যান্সার হলে তা শরীরে ছড়িয়ে পড়ার প্রবণতা থাকে।

তিন.

কারো খুসখুসে কাশি বা ভাঙা কণ্ঠস্বর হতে পারে। অনেকেই তখন ভেষজ নানা পদ্ধতি প্রয়োগ করে কাশি নিবারণের চেষ্টা করে থাকেন; কিন্তু একটানা ১৫ দিন এসব উপসর্গ থাকলে এবং তেমন কোনো পরিবর্তন না হলে, অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত। কেননা খুসখুসে কাশি বা ভাঙা কণ্ঠস্বর দীর্ঘস্থায়ী হলে ফুসফুসের ক্যান্সার, ল্যারিংস বা ভয়েজ বক্সের ক্যান্সার দেখা দিতে পারে।

mastercard

চার.

কারো ঢোক গিলতে অসুবিধা ও হজমের গণ্ডগোল হলে সতর্ক হতে হবে। খাদ্যনালির ইসোফেগাস থেকে পাকস্থলী পর্যন্ত টিউবে ক্যান্সার হলে এ রকম হতে পারে। আবার ইরিটেবল বাউয়েল সিনড্রোম বা আইবিএস হলেও এমনটি হয়। কোষ্ঠকাঠিন্য ও পাতলা পায়খানা হলেও সতর্ক হতে হবে। কেননা ক্ষুদ্রান্ত্রের ক্যান্সার থেকেও এমনটি হতে পারে। মলমূত্র ত্যাগে অভ্যাসের পরিবর্তন হলে কোলন ক্যান্সার হতে পারে। প্রস্রাবের সঙ্গে রক্ত গেলে ও ব্যথা অনুভব হলে, কোমর ও তলপেটে ব্যথা অনুভব হলে, রাতে বেশি বেশি প্রস্রাব হলে প্রস্টেট ক্যান্সার হতে পারে। এসব বিষয়ে সতর্ক হতে হবে।

পাঁচ.

শরীরে নানা রঙের তিল বা আঁচিল থাকে; কিন্তু হঠাৎ যদি দেখা যায়, তিলের মধ্যে পরিবর্তন ঘটে গেছে, যেমন—আকারে দ্রুত বড় হয়েছে, রং পরিবর্তন হয়েছে, খসখসে হয়ে গেছে, ভেতর থেকে রক্ত বা কষ বের হচ্ছে—এমন উপসর্গ দেখা দিলে অবহেলা না করে অবশ্যই সতর্ক হতে হবে এবং চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে। এসব ক্যান্সারের লক্ষণ।

ছয়.

কোনো কারণ ছাড়াই হঠাৎ ওজন কমে যেতে পারে। তবে ৪০ বছরের বেশি বয়সে এমনটি মনে হলে সতর্ক হতে হবে। পাকস্থলীর ক্যান্সার হলেও এমনটা হতে পারে। তাই এ বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে।

সাত.

হাড়ে ব্যথা হচ্ছে, ফুলে যাচ্ছে, হঠাৎ পড়ে গিয়ে ফ্রাকচার হয়েছে—এমনটি হলে সতর্ক হতে হবে। তা ছাড়া পোড়া ঘা ভালো হওয়ার পর আবার হয়েছে, শুকাচ্ছে না—এগুলো স্কিন ক্যান্সারের লক্ষণ।

এসব লক্ষণ যদি দুই সপ্তাহের পরেও স্থায়ী হয়, তাহলে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের শরণাপন্ন হোন বা নিকটস্থ কোনো হাসপাতালে যান। কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে যদি দেখা যায় কিছু নেই, তবে টেনশনের কারণ নেই। আর যদি কিছু ধরা পড়ে এবং সেটি প্রথম অবস্থায় হয়, তবে চিকিৎসা করে খুব ভালো ফল পাওয়া যায়। এতে শারীরিক কষ্ট কম হবে, অর্থ খরচ কম হবে, চিকিৎসায় সুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বাড়বে। তাই ক্যান্সার হওয়ার এসব বিপত্সংকেত নিয়ে সবাই সতর্ক থাকুন।

ক্যান্সার নিয়ে হেলথ বাংলা লেখা অন্যান্য পোস্টগুলো দেখে নিন

Check Also

Thyroid Problem in Bangla

জেনে নিন থাইরয়েড রোগ হলে কি কি লক্ষণ দেখা দেয়

থাইরয়েডের সমস্যা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। শরীরের সব কাজ নিয়ন্ত্রণের জন্য থাইরয়েড হরমোনের অত্যন্ত বেশি ভূমিকা রয়েছে। …

Loading...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *