Home > জীবনযাপন > হোটেল এ কিভাবে সাবধানে মাগী চুদবেন?
Loading...

হোটেল এ কিভাবে সাবধানে মাগী চুদবেন?

হোটেল এ কিভাবে সাবধানে মাগী চুদবেন? অনেকে জানতে চেয়েছেন আমাদের কাছে।  Hotel এর ফোন নাম্বার – Dhaka – Healthbangla.com থেকে অনেকে মাগী লাগাতে হোটেল এ উঠছেন, কিন্তু হোটেল এ মাগী লাগাতে জেয়ে যেন কোন বিপদে না পড়েন সেজন্য আজকে আমাদের হোটেল এ কিভাবে সাবধানে মাগী চুদবেন এর পুরোটা পড়ুন। 

রাজশাহীঃ

Chodar Magi
Chodar Magi

ঐতিহাসিক রাজশাহী রেলস্টেশন এই যায়গায় অনেক রকম মাগী পাওয়া যায় । তবে এদেরকে চিনতে হবে। চিনার উপায় হচ্ছে ঠোটে গাড় লিপষ্টিক দেওয়া থাকবে , মনে হবে কাকে খুজছে , তবে ওদের পরিচিত অনেকজন আছে যারা এসে তাদের নিয়ে যায় । আবার কাউকে পেলে লাগাবেন কোথায় ? অনেকে পাশে ভদ্রা পার্কে যায়, {এখন যাওয়া যাবেনা সমস্যা আছে} কেউ পরিচিত হোটেলে যায় ।আবার যারা স্থানীয় তারা কয়েকজন রেলওয়ের পরিত্যক্ত ভবনে নিয়ে লাগায় ,এদের কেউ পাহারা দেয় , কেউ বা লাগায় । আপনাকে যা করতে হবে : আগে খুজে বার করতে হবে তারপর ভাড়া চুকিয়ে নিবেন এবং আপনার পরিচিত কোন হোটেল বা নিরাপদ যায়গায় লাগাবেন । স্থানীয়দের সাথে সম্পর্ক থাকলে আপনি কম খরচে পরিত্যক্ত ভবনেই কাজ সারতে পারবেন । তবে স্থানীয়দের কখনো চটাবেন না আর চটালে জীবনে যাবেননা নাহলে এমন ধরা খাওয়াবে যে চৌদ্দ গুষ্টি উদ্ধার করে ছাড়বে । সবশেষে একটি সহজ উপায় আছে – ষ্টেশনের বাইরে যে টয়লেট আছে সেখানে গিয়ে মাগির খোজ করলেই সব হাজির হয়ে যাবে ।

কুমিল্লাঃ

Dhaka Magi Phone Number
Dhaka Magi Phone Number

কুমিল্লা শহরের হোটেলগুলোর সিংহভাগই পতিতা ব্যবসায় জড়িত রয়েছে। এছাড়াও কুমিল্লার অন্যান্য উপজেলার আবাসিক হোটেলে পতিতাবৃত্তির সন্ধান পাওয়া গেছে।নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক সূএ জানায়,শহরের দেহ ও মাদক ব্যবসায় জড়িত আবাসিক হোটেল গুলো হচ্ছে শাসনগাছার হোটেল ঝিনুক,আল মাসুম,আল শোভা,কান্দিরপাড় হোটেল অবকাশ,হোটেল রফিক,আলেখারচরের হোটেল নিউ ময়নামতি,হোটেল আল ফালাহ,আল আমিন হোটেল,ময়নামতি হোটেল,ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ঝাগুড় ঝুলিতে হোটেল বৈশাখী,স্টেশন রোডের সবুজ রেস্ট হাউজ,চকবাজারের আগ্রাবাদ,আরজু,নিদ্রাবাগ,সবুজ বাংলা,মনোহরপুরের কুকিজার ফাস্ট ফুডের উপরে আজমীর রেষ্টহাউজ,পদুয়ার বাজারের পদ্মা ,অতিথি,তাজ,সাগরিকা,বিলাস,যমুনা ,সম্রাট,ইসলামিয়া ইত্যাদি হোটেল গুলো। এসব আবাসিক হোটেলে ১২ থেকে ৩০ বা ততোধিক বছর বয়সের ললনারা অশ্লীল ও অসামাজিক এ কার্যসিদ্ধে লিপ্ত। হোটেলগুলোর একেকটি কক্ষে ১০/১২ জন করে মেয়ে থাকে। খদ্দের এলে পছন্দসই মেয়েকে নিয়ে ভিন্ন রুমে চলে যায়। এসব মেয়ের কেউ ৮/১০ জন খদ্দের পায়, আবার কেউ ২/১ জন, কেউবা অনেক দিন ব্যর্থ হয়েই ঘরে ফেরে। তবে অনুসন্ধানে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী কুমিল্লা জেলার ছোট-বড় প্রায় শ খানেক হোটেলে প্রতিদিন প্রায় হাজার খানেকের মতো খদ্দেরের যৌনসুখ নিবারণে নিয়োজিত রয়েছে প্রায় দেড় হাজারের বেশি ললনা। হোটেলভিত্তিক এই পতিতা বাণিজ্যে মাসিক আয় অন্তত কয়েক লাখ টাকা।

ঢাকাঃ

Dhakar Magi
Dhakar Magi

যৌনকর্মীরা জানায়, আবাসিক হোটেলের ম্যানেজার ও বয়-বেয়ারা নির্দিষ্ট কমিশনের ভিত্তিতে খদ্দের যোগাড় করে দেয় তাদের। অনেক পেশাদার যৌনকর্মী অবশ্য নিজেরাই কার্ড বিলি করে। এসব কার্ডে সাধারণত মধ্যস্থতাকারীর মোবাইল নম্বর থাকে। পার্ক, ওভারব্রিজ এলাকায় তাদের তৎপরতা বেশি। আরেক কৌশল- হারবাল চিকিৎসার নামে ভিজিটিং কার্ড বিতরণ। ফার্মগেট, শাহবাগ, কাকরাইল, মালিবাগ, মতিঝিল, সায়েদাবাদ, গাবতলী এলাকায় এ তৎপরতা বেশি। ব্যস্ততম গাড়িতে ছুড়ে দেয়া হয় যৌন চিকিৎসার নামের হ্যান্ড বিল। ওই সব চিকিৎসার আড়ালে চলে যৌন ব্যবসা। রাজধানীর আবাসিক হোটেলের সামনে প্রতিদিন অবস্থান করে দালাল চক্র। টার্গেট করা পথচারীকে তারা ডাকে মামা বলে। কাছে এলেই ধরিয়ে দেয় ভিজিটিং কার্ড। বলে, মামা যেমন বয়সের দরকার সব ব্যবস্থা আছে। জায়গার সমস্যা হলে বলবেন। তবে রেটটা বাড়িয়ে দিতে হবে।

Jevabe Magi Chudben
Jevabe Magi Chudben

যৌনকর্মীরা বেশির ভাগ ক্ষেত্রে তাদের পরিচিত মানুষের মাধ্যমে বাসায় খদ্দের পেয়ে থাকে। রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার ফ্ল্যাট বাসায় ভিআইপি যৌন ব্যবসা নতুন কিছু নয়। বিশেষ করে মহাখালী ডিওএইচএস, গুলশান, বনানী লালমাটিয়া, দিলু রোড, ইস্কাটন রোড, সেন্ট্রাল রোড, মোহম্মদপুর, রামপুরা, শান্তিনগর, উত্তরা, কাকলী, কালাচাঁদপুর এলাকায় এ ব্যবসা চলছে বলে জানায় এক যৌনকর্মী। তবে ভিআইপি এলাকায় যৌন ব্যবসা পরিচালিত হয় বিশেষ গোপনীয়তায়। সেখানে যাতায়াত করে বিশেষ ধরনের খদ্দের। মালিবাগের এক ভ্রাম্যমাণ যৌনকর্মী জানায়, ঢাকা শহরের দু’-একটা স্থান ছাড়া সব জায়গাতেই এ ব্যবসা চলছে। মোবাইল ফোন ও ভিজিটিং কার্ডের মাধ্যমে এ ব্যবসার গতি বৃদ্ধি পেয়েছে। পেটের দায়ে যে যৌনকর্মীরা রাস্তায় নেমেছে পুলিশের হাতে প্রতিনিয়ত নির্যাতিত হতে হয় তাদের। কিনু্ত ভিআইপি এলাকায় পুলিশকে সালাম দিয়েই ঢুকে যায় তারা। পথচারী আলাল মিয়া জানান, তার হাতে একটি কার্ড পড়েছিল। কল করলে একজন পুরুষ রিসিভ করে। বিনয়ের সঙ্গে জানায়, আপনার ফোনের অপেক্ষায় আছেন ঢাকার বিভিন্ন কলেজ, ইউনিভারসিটির ছাত্রী ও মধ্য বয়সের মহিলা যৌনকর্মী। বলুন কি সেবা করতে পারি স্যার? তার মতে, আজকাল সংসারে অশান্তি, স্বামী বিদেশে বা স্বামীর কর্মস্থল ঢাকার বাইরে- এ ধরনের অনেক মহিলা হোম সার্ভিসে যোগ দিয়েছেন।

Magi Chodar Niyom
Magi Chodar Niyom

ভিজিটিং কার্ডের নম্বরধারীরা সাধারণত চারটি ভাগে রাজধানীতে যৌনকর্মী সরবরাহ করে। প্রথমত- যৌনকর্মীকে ভিজিটরের বাসার ঠিকানায় পৌঁছে দেয়া, দ্বিতীয়ত- যৌনকর্মী ও ফ্ল্যাট ভিজিটরকে নিরাপদে নিয়ে আসা, তৃতীয়ত- হোটেল কক্ষে যৌন মিলনে নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা এবং চতুর্থ প্রাইভেট পরিবহন ও পার্ক। বিশেষ শ্রেণীর যৌনকর্মীরা নিজের ফ্ল্যাট বাসা-বাড়িতে খদ্দেরকে আপ্যায়ন করে । একটি সূত্র জানায়, কেবল টাকার জন্য নয়- নিজেদের মনোরঞ্জনের জন্যও অনেক মহিলা এ কাজে নেমেছে। তবে এ সংখ্যা খুব কম।

এমনও যৌনকর্মী আছে যাদের সন্তান বড়- স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখা করে। সূত্র মতে, আবাসিক হোটেলের প্রায় ২ থেকে ৩শ’ ভিজিটিং কার্ডধারী যুবক এখন যৌনকর্মীদের মধ্যস্থতাকারীর কাজে লিপ্ত। ভিজিটিং কার্ডের আয় থেকে চলছে তাদের সংসার। কাওরান বাজারের এক হোটেল বয় জানায়, আজকাল ভদ্র ঘরের মেয়েরাও যৌন ব্যবসার প্রতি ঝুঁকে পড়েছে। স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীরা নেমেছে এ পেশায়। তারা বড় বড় হোটেলে যায়। তাদের কন্টাক্ট নম্বর কেবল হোটেলে পাওয়া যায়। ডিওএইচএস-এর এক যৌনকর্মী সম্পর্কে সে জানায়, দূরের জেলায় ব্যবসা করে। নিঃসন্তান। প্রতি শুক্রবার স্বামী ঢাকায় ফেরে। ওই মহিলা সপ্তাহে তিন দিন আমাদের মাধ্যমে বাসায় খদ্দের নেয়। ভিজিটের অর্ধেক টাকা দিয়ে দেয়।

আবাসিক হোটেলের মেয়েদের নাম্বার
আবাসিক হোটেলের মেয়েদের নাম্বার

বনানীর এক যৌনকর্মীর স্বামী সরকারি কর্মকর্তা। সে ১ সন্তানের মা। টাকার জন্য এ পেশায় এসেছে। সূত্র খুব বিরক্তি প্রকাশ করে বলে, সে একেবারে হাড়কিপ্টে। জিজ্ঞেস করা হয়, মহিলার আয় কত? সপ্তাহে ২৫ হাজার টাকা। আর সে কমিশন পায় ৫ হাজার টাকা। জানতে চাওয়া হয় কতদিন ধরে মহিলা এ কাজে লিপ্ত? উত্তরে জানায়- ৪ মাস। পরিচয় কিভাবে? হঠাৎ একদিন হোটেলের সামনে তার প্রাইভেট কার নষ্ট হয়ে গিয়েছিল। আরেক সূত্র জানায়, হোটেলে শুধু পতিতা মেয়েরা আসে না। কেউ আসে পতিতা সেজে। খদ্দের দেখে পছন্দ হলে বাসায় নিয়ে যায়। বিনিময়ে আমাদের কিছু টাকা ধরিয়ে দেয়। তার মতে এরা পতিতা নয়। স্বামীর অসঙ্গতি, সংসারে ঝামেলা ও বিভিন্ন মানসিক কষ্টের কারণে এ কাজে তারা ঝুঁকে পড়েছে। জানতে চাওয়া হয়, এই ধরনের মহিলাদের সংখ্যা? সে বলে তার হাতে আছে ২৩ জন। প্রতিদিন পালাক্রমে তাদের খদ্দের পাঠাতে হয়। এরা ‘ভাবী’ নামে পরিচিত। এই ‘ভাবী’দের ভিজিট কেমন? ঘণ্টা প্রতি ৫ থেকে ৬ হাজার টাকা। তবে সুদর্শন পুরুষ তাদের বেশি পছন্দের। তাদের জন্য ডিসকাউন্ট আছে। এ সূত্রটির মাসিক আয় ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা।

হোটেল এ কিভাবে সাবধানে মাগী চুদবেন?

যারা এখনো কোন মাগীকে হোটেলে নিয়ে চুদেন নি বা চুদবেন চুদবেন ভাবছেন তাদের জন্য আমি আজকে কিছু দেব পরামর্শ যদি পরামর্শগুলো মানেন তাহলে অনেক বাচা বেচে যাবেন না হয় ধরা খাবার সমুহ সম্ভাবনা থাকতে পারে ।

সবচেয় জরুরী পয়েন্ট হলো এটা যে পতিতালয়ে বা হোটেলে চুদতে যাবার সময় মানিব্যাগ বাসায় রেখে যাবেন সাথে সাথে গলায় চেইন বা আংটি থাকলে তাও রেখে যাবেন না হয় এগুলো ফিরে আসার সম্ভবনা একদমই নেই।

কারন ওইখানে গিয়ে আপনি চিল্লাচিল্লি করতে পারবেন না সব রেখে দিবে ব্লাকমইল করবে।যদি রেখে দেয় তাহলে আপনার কিছুই করতে পারবেন না আপনি কাউকে বলতেও পারবেন না লজ্জায়।তাই প্রয়োজনীয় টাকা ছাড়া একটা টাকাও সাথে নিবেন না । ভাল হয় কয়েকজন বন্ধু সহ একসাথে গেলে । তবে হোটেলে আপনার খাস লোক চিনা থাকলে তেমন কোন অসুবিধা হবে না ।

mastercard

যৌনকর্ম চলে ২৪ ঘন্টাই।তবে অধিকাংশ হোটেলেই রাতে ললনারা থাকে না। সকাল ৬টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত চলে হোটেলভিত্তিক দেহব্যবসা। হোটেলের দেহপসারিণীরা সপ্তাহে ২/৩টি হোটেল পরিবর্তন করে। টানা একই হোটেলে কাজ করার মধ্যে কিছু ঝুঁকি ও দেনদরবারে সমস্যা হয় বলেই মূলত হোটেল পরিবর্তন করে মেয়েরা।

সবচেয়ে ভাল হয় আগে থেকে ফোনে কথা বলে নিলে । কেন ? কারন হোটেল যেখানেই হোক না কেন আর তারা পুলিসেরে যতই টাকা দেক না কেন । পুলিস মাঝে মাঝে দেখানর জন্য রুটিন চেক করে । আর তখন ধরা খাইলে আপনারে লেংটাই ধরে নিয়ে যাবে । তাই আপনার খাস লোক থাকলে সেই আপনাকে বলতে পারবে কবে গেলে নিরাপদ ।

দেখে আসুন ঃ দুধ টেপার নিয়ম

· কিছু কিছু জায়গায় মাগীরা কথা বলার নাম করে অন্ধকারে নিয়ে যায় তারপর সব রেখে দেয় এগুলো খেয়াল রাখবেন।

· মাগীর সাথে কথা বলার সময় টাকা কি হোটেল রুম ভাড়া ছাড়া নাকি রুম ভাড়া সহ তা ভালো করে ঠিক করে নিবেন ।

· অধীকাংশ ক্ষেত্রে যেটা হয় মনে করুন আপনি মাগীকে ঠিক করলেন ৫০০ টাকায় তারা হোটেলে ঢুকার পর অকারনে টাকা বেশি চাইবে বলবে ৬০০ দেন ৭০০ দেন ।অথবা করে কি যে ,হোটেল ভাড়া যদি হয় ১৫০ তাহলে ওরা করবে কি হোটেল মালিক কে ৫০ টাকা দিয়ে বাকীটা আপনার কাছে থেকে আদায় করবে।

তবে ঢাকার মাগিদের (মিডিয়াম ক্লাস) সাধারন রেট ৩০০ টাকা । করার আগে কখনও টাকা দিবেন না । তাহলে মাগি আপনাকে সুধুই ঢুকিয়ে করতে দিবে আর ১০ মিনিট যাওয়ার আগেই দালাল দরজা ধাক্কাধাক্কি লাগিয়ে দিবে । মাগিকে কখনও বলবেন না ‘তোকে টাকা দিয়ে চুদতে এসেছি ‘ হেবি মাইন্ড খাবে তাহলে ।

· চুদার সময় অবশ্যই কনডম লাগাবেন না হয় এইডস হবার ঝুকি ১০০%

· রুমের ভিতরে ঢুকার পর যথাসম্ভব লাইট অফ করে দিবেন বা ক্যামেরা আছে কিনা একটু চেক করে নিবেন । ভিডিও করে মার্কেটে ছেড়ে দিলে আপনার লাইফ পুরাটাই শেষ ।

একটা জিনিস মনে রাখবেন । বাংলাদেশে কোন মেয়েই ইচ্ছা করে মাগি হয় না । ৮০% মেয়েকে ভাগ্যের কারনে হতে হয় । যা আমরা পুরুষ মানুষ কখনই বুঝতে পারবোনা । তাই কখনও কোন মাগিকে ছোট করে কথা বলবেন না । নিজের আর পরিবারের দুই মুঠো খাবার যোগাতে তারা এতো নিচে নেমে এই কাজ করে । আর অনেকেই চুদার সময় মেয়েদের কষ্ট দিয়ে চুদতে পছন্দ করে যেটা একধরনের মানসিক সমস্যা ।

· এই্ সব পয়েন্টগুলো অবশ্যই খেয়াল রাখবেন না হয় অনেক সমস্যায় পড়তে হবে
তবে ধাকায় কিছু হাই ক্লাস পতিতালয় আছে যেখানে সেরকম সেরকম ভার্সিটির মেয়েরা টাকার বিনিময়ে দেহ দান করে । সেগুল কিছুটা নিরাপদ ।

হোটেল এ কিভাবে সাবধানে মাগী চুদবেন পোস্ট টি ভাল লাগলে বুকমার্ক করে রাখুন। যখন হোটেল এ যাবেন তখন কাজে লাগবে। 

Check Also

smart-phone-addiction

মোবাইল ফোনে আসক্তির কারণে জমে উঠছে না আপনার সেক্স লাইফ

সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে মোবাইল ফোন আসক্তির জন্য সেক্স লাইফে আনন্দ হারাচ্ছেন দম্পতিরা। স্বামী …

Loading...

No comments

  1. জাকির

    Excellent . যেহেতু এই কাজটিই অনৈতিক , কাজের সাথে মিলিয়ে আপনার ভাষাগুলুও ঠিকই লিখেছেন । সর্বোপরি – এই সকল পতিতারা কেন পতিতা হয়েছেন, তাও তুলে ধরেছেন । জানার শেষ নাই – বুঝারও শেষ নাই । আপনার মাধ্যমে একটি সত্য জানার সুযোগ হয়েছে । ধন্যবাদ ।

  2. এখানে একটা মাগীর ছবি দেখলাম , মেয়েটা বেশ কচি — মাগীকে দেখে বাঁড়া টং টং করে দাঁড়িয়ে গেল মাগীর গুদ মারার জন্য । এখন বাথরুমে গিয়ে বাঁড়ায় হ্যান্ডেল মেরে মাল ফেলা ছাড়া আর উপায় কি ?

  3. টাকা নিয়ে মাগীরা গুদে লাগাতে দেয় তো , না কি টাকাটা নিয়ে পুলিশ কে বলে যে তাকে জোর করে গুদ মারার জন্য ধরে নিয়ে এসেছে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *