নখের যত্ন – ম্যানিকিওর পেডিকিওর

নখ সুন্দর রাখতে পানির ব্যবহার যত কম করা যায় ততই ভালো। কিন্তু গৃহিণীদের প্রায় সকল কাজেই পানির ছোঁয়া আছে। একটুখানি ইচ্ছা এবং সচেতনতা থাকলেই সম্ভব নখের যত্ন নেওয়া। আর নখের যত্নে ম্যানিকিওর ও পেডিকিওর জরুরি।

Nail Care

নখের যত্ন

ম্যানিকিওর

বাড়িতে অথবা পার্লারে মাসে ৩/৪ বার নখের যত্নে ম্যানিকিওর করা উচিত। বাড়িতে ম্যানিকিওর করতে চাইলে প্রয়োজনীয় প্রসাধন সামগ্রী যেকোনো ভালো মার্কেট থেকে কিনে নেবেন। এগুলো হচ্ছে—নেল কাটার, নেল ব্রাশ, নেল বাফার, নেল পলিশ, নেল পলিশ রিমুভার, ছোট তোয়ালে, ছোট গামলা এমারিবোর্ড, স্টেরিলাইজড তুলো, অরেঞ্জ স্টিক, কিউটিকল সফলার লোশন, ক্রিম বা অলিভ অয়েল, বিউটিকল সিজার, বেস-কোট নেল এনামেল বা ন্যাচারাল এনামেল। প্রথমে হাতের নখ কেটে নিন ডিম্বাকৃতির শেপে। নখ না কাটলে চাইলে এমারি বোর্ড দিয়ে কোণ থেকে ঘষে ঘষে অর্ধ গোলাকার করে নিন। এমারি বোর্ড দিয়ে নখ ঘষার সময় খেয়াল রাখবেন কোণ থেকে মাঝ বরাবর ঘষবেন কখনোই মাঝ থেকে কোণ বরাবর ঘষবেন না। ঘষলে নখ মসৃণ এবং সুন্দর হবে না। নখে নেল পলিশ লাগানো থাকলে নেল পলিশ রিমুভারে তুলো ভিজিয়ে প্রতিটি নখে চেপে চেপে ভালো করে পরিষ্কার করে নিন। ক্রিম বা অলিভ অয়েল তুলোতে ভিজিয়ে প্রতিটি নখে লাগান। ছোট গামলার কুসুম কুসুম গরম পানিতে শ্যাম্পু এবং এক চিমটি লবণ গুলে আঙুলগুলো ডুবিয়ে রাখুন ২০ মিনিট। এরপর নেল ব্রাশ দিয়ে ঘষে ঘষে নখ পরিষ্কার করুন। এবার নরমাল পানিতে হাত ধুয়ে তোয়ালে দিয়ে মুছে হাত শুকিয়ে নিন।
নেল এনামেল লাগাবার আগে ইচ্ছা করলে নেল বাফার দিয়ে একদিকে ঘষে ঘষে নখে রক্ত চলাচল বাড়িয়ে নিতে পারেন। আধ মিনিট করে একেকটা নখ ঘষলেই চলবে। বাফার ব্যবহার করলে নখ বেশি চকচক করে ও বেশি রক্ত চলাচল করার দরুণ নখ ভালো থাকে।

পেডিকিওর

Manicure

কাটা নখ এমারি বোর্ড দিয়ে ঘষে মসৃণ করে নিন

মাসে ২/৩ বার পেডিকিওর করলেই হবে। ম্যানিকিওর করার জন্য যেসব জিনিসের তালিকা দেওয়া হয়েছে তার সাথে মাঝারি বালতি, পিউমিস স্টোন বা পা ঘষার ব্রাশ/ছোবড়া যোগ করলেই হবে। বাড়িতে পেডিকিওর করবেন যেভাবে—নেল এনামেল রিমুভার দিয়ে পুরোনো নেল এনামেল হাতের নখের মতো তুলে ফেলুন। নেল কাটার দিয়ে নখ কেটে নিন। পায়ের নখ আড়ের দিকে সোজা করে কাটবেন, গোল করে নয়। কাটা নখ এমারি বোর্ড দিয়ে ঘষে মসৃণ করে নিন। গোলাকার আকৃতি করবেন না। সোজা করে একদিকে ঘষবেন।
এক বালতি হালকা গরম পানিতে শ্যাম্পু এবং একটু লবণ গুলে নিন। এবার পা দুটো ২০ মিনিট ভিজিয়ে রাখুন। এক পা উঠিয়ে নেইল ব্রাশ দিয়ে নখ পরিষ্কার করে দিন, এবার অন্য পা একইভাবে পরিষ্কার করে নিন। ছোবড়া বা পা ঘষার ব্রাশ দিয়ে ঘষে ঘষে পরিষ্কার করে নিন। যদি পায়ের পাতা বেশি কর্কশ হয় অথবা কালো ছাপ থাকে। পিউমিস স্টোন দিয়ে ঘষে ঘষে মসৃণ করে নেবেন ও দাগ তুলে ফেলবেন। অরেঞ্জ স্টিকে তুলো জড়িয়ে নখের কোণা পরিষ্কার করে নিন।

নখের যত্নে যা যা করতে হবে

  1. অতিরিক্ত পানি, অতিরিক্ত গরম, ঠাণ্ডা, ক্ষার জাতীয় পদার্থ নখের জন্য ক্ষতিকর।
  2. দিনে ২ বার সাবান পানিতে কবজি থেকে নখ পর্যন্ত হাত ও নখসহ পায়ের পাতা ধোয়া দরকার।
  3. হাত-পা ধোয়ার পর তেল, ক্রিম বা লোশন মেখে নেবেন।
  4. হাত পা সব-সময় শুকনো রাখার চেষ্টা করবেন।
  5. নখ প্রসাধনের জন্য যে নেল এনামেল ব্যবহার করা হয় তা খুব উপকারী। এসব সামগ্রী উজ্জ্বলতার পাশাপাশি নখ মোটা করে। তাই চট করে নখ ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে না।
এ বিষয়ে আরও জানতে  গরমে ত্বকের যত্ন

আরো অনেকে খুজেছে

ইসলামিক নিয়মে নখ কাটার নিয়ম, পেডিকিওর মেনিকিওর করার নিয়ম, ম্যানিকিওর ও প্যাডিকিওর করার নিয়ম

One Response

  1. Shirin January 20, 2015

Leave a Reply