টমেটোর পুষ্টিগুণ

শীতকালীন সবজি হলেও টমেটো এখন সারা বছরই বাজারে দেখা যায়। এটি পুষ্টিকর উপাদান ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে সমৃদ্ধ। বিভিন্ন ধরনের রোগের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে আপনার শরীরকে ঠিক রাখে। যদিও কেমিক্যাল দিয়ে পাকানো ও ফরমালিন দিয়ে রাখা টমেটো এবং জিএম টমেটোতে উপকার থেকে অপকারই বেশি। তবে বাজারের সব টমেটোর অবস্থা এক নয়।

টমেটো

টমেটোর পুষ্টিগুণ

দৃষ্টিশক্তি বাড়ায় : টমেটোতে রয়েছে চোখের জন্য অতিপ্রয়োজনীয় ভিটামিন এ। এটি দৃষ্টিশক্তির উন্নতিতে সাহায্য করে। রোধ করে রাতকানা রোগ ও মলিকুলার ডিজেনারেশন।

ক্যান্সার প্রতিরোধ : টমেটোয় প্রচুর পরিমাণ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট লাইকোপেন আছে। এটি ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়। বিশেষ করে ফুসফুস, পাকস্থলী ও প্রোস্টেট ক্যান্সার।

রক্তকে স্বাভাবিক রাখে : একটি টমেটো দিতে পারে  দৈনিক প্রয়োজনের ৪০ ভাগ ভিটামিন সি। এ ছাড়া এতে রয়েছে ভিটামিন এ, পটাসিয়াম এবং আয়রন। এর সব ক’টিই রক্তকে স্বাভাবিক ও সবল রাখে। এতে থাকা ভিটামিন কে রক্ত পড়া ও জমাট বাঁধা নিয়ন্ত্রণ করে। এ ছাড়া টমেটো রক্ত সংবহনে সাহায্য করে।

এ বিষয়ে আরও জানতে  তরমুজের পুষ্টিগুণ

হৃদরোগের ঝুঁকি কমায় : টমেটোতে থাকা লাইকোপেন কার্ডিওভাসকুলার রোগের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে। নিয়মিত টমেটো খেলে রক্তের কোলেস্টরল ও ট্রিগলাইসিরাইডের মাত্রা ঠিক থাকে। এ ছাড়া শিরায় চর্বি জমতে দেয় না।

হজমশক্তি বাড়ায় : নিয়মিত টমেটো  খেলে হজমপ্রক্রিয়া ভালো থাকে। কোষ্ঠকাঠিন্য ও ডায়রিয়া রোধ করে। এ ছাড়া জন্ডিস প্রতিরোধ করে এবং শরীর থেকে টক্সিন সরিয়ে দেয়।

Leave a Reply