Loading...

Body Fitness Tips Bangla – Male and Female

এগুলো আপনার দেহ গঠনে ভূমিকা রাখবে। পাশাপাশি অতিরিক্ত চর্বি পুড়িয়ে দেহকে মুটিয়ে যাওয়া থেকে রক্ষা করবে। তবে এর সঙ্গে অবশ্যই স্বাস্থ্যসম্মত খাবার ও পর্যাপ্ত ঘুম দরকার।

– যাদের সারাদিনের বড় একটা সময় বসে কাজ করতে হয় বা শারীরিক পরিশ্রম কম হয়ে থাকে তাদের জন্য দৌড়ানো অত্যন্ত উপকারী। দৌড়ালে শরীরের প্রতিটি পেশি সচল থাকে। বসে কাজ করার ফলে হাত, পা, হাঁটু ইত্যাদি সন্ধিস্থলে ব্যথা উপশমেও দৌড়ানো বেশ উপকারী।

– নিয়মিত দৌড়ালে শারীরিক অনেক অসুখ বিসুখ থেকেও মৃক্তি পাওয়া যাবে।

– দৌড়ানোর ফলে খাবার খাওয়ার সময় ক্যালোরির পরিমাণ নিয়ে মাথা ঘামানোর প্রয়োজন হবে না। তাছাড়া এই ধরনের ব্যায়ামের পর মন ভরে খাবার খেতেও তেমন কোন বাঁধা থাকবে না। ফলে মনও ভালো থাকবে।

– একঘেঁয়েমি কাটাতে বেশ উপকারী অভ্যাস দৌড়ানো। এ ব্যায়ামের জন্য কোনো নির্দিষ্ট স্থানের দরকার নেই। অর্থাৎ নিজের মন মতো জায়গা বেছে নেওয়া যেতে পারে দৌড়ানোর জন্য। তাই প্রতিদিনের একঘেঁয়েমি কাটানো যায় সহজেই। তাছাড়া হজম প্রক্রিয়া সচল রাখতে সাহয্য করে দৌড়ানো।

Body Fitness Tips Bangla – Male and Female

সাঁতার:  সাতারপ্রেমীদের জন্য সুখবর-দেহ গঠনের জন্য সবচেয়ে প্রয়োজনীয় ব্যায়াম হচ্ছে সাতার। যেহেতু সাঁতারে দেহের প্রতিটি অঙ্গপ্রতঙ্গ নড়াচড়া করে, তাই মাংসপেশি মজবুত করতে সাঁতারের বিকল্প নেই। সেসঙ্গে রক্তচাপ ও হৃদপিণ্ডের জন্যও এটি কার্যকরী।

দড়ি লাফ:  সর্বশেষ কবে দড়িতে লাফিয়েছেন? নিশ্চয়ই ছোট থাকতে। কিন্তু এর উপকারিতার কথা জানলে এ বয়সেও লাফাতে মন চাইবে। দড়ি লাফ সবচেয়ে সহজে সবখানে করা যায় এমন একটি ব্যয়াম। যেকোনো ব্যায়ামের চেয়ে এটি প্রতি মিনিটে দ্রুত ক্যালোরি পোড়ায়।

ছেলেরা যেভাবে body Fit রাখবেন

পুরুষেরা কেজেল ব্যায়াম করবেন পেলভিস ফ্লোর মাসল অর্থাৎ শ্রোণী মেঝের পেশী খুঁজে বার করা এবং সেটা কিভাবে সংকোচন/প্রসারন করবেন- সেটা কিছুটা কষ্টসাধ্য হলেও অসম্ভব কিছু নয়। ব্যায়ামের আগে ঠিকমতো প্রস্রাব করে নেবেন। প্রথম দিকে উচিত হবে মেঝেতে শুয়ে এই ব্যায়াম করা।

মেঝেতে শুয়ে পেলভিস ফ্লোর মাসল ৩ সেকেন্ড সংকোচন করে রাখুন, তারপর ৩ সেকেন্ড প্রসারণ করে রাখুন। এভাবে টানা কয়েকবার করবেন। তবে খুব বেশী না। মাসল ধীরে ধীরে শক্তিশালী হতে শুরু করলে বসে, দাঁড়িয়ে বা চলন্ত অবস্থায়ও করতে পারবেন। অনেকেই ভুল করে পেটের বা তলপেটের, উরু, এবং নিতম্বের পেশী সংকোচন করে ফেলেন। এটা ঠিক নয়। দম বন্ধ বা ধরে রাখবেন না। শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিক রাখুন।তলপেটে চাপ পড়ে এমন কিছু কাজকর্মের সময়ও (যেমন হাঁচি, কাশি, হাসা, ভারী বস্তু উত্তোলন) আপনার পেলভিস ফ্লোর মাসল সংকোচন হতে পারে।

এছাড়া যৌনমিলনের সময় পেলভিস ফ্লোর মাসল সংকোচন করে লিঙ্গ আরো অধিকক্ষণ উত্থিত রাখতে পারেন বা অকাল বীর্যপাত রোধ করতে পারেন। ব্যায়াম করতে গিয়ে সমস্যায় পড়লে সাহায্য চাইলে কার্পণ্য বা লজ্জা করবেন না। নিকটস্থ স্বাস্থ্যসেবা বা ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করবেন যাতে তারা আপনাকে সঠিক পেশী সনাক্তকরণ এবং ব্যায়ামের পদ্ধতি শিখিয়ে দিতে পারেন।

মেয়েরা যেভাবে body Fit রাখবেন

এগুলো আপনার দেহ গঠনে ভূমিকা রাখবে। পাশাপাশি অতিরিক্ত চর্বি পুড়িয়ে দেহকে মুটিয়ে যাওয়া থেকে রক্ষা করবে। তবে এর সঙ্গে অবশ্যই স্বাস্থ্যসম্মত খাবার ও পর্যাপ্ত ঘুম দরকার।

ডায়াবেটিস রোগীদের যেভাবে ব্যয়াম করা উচিত

হাঁটা বা দৌড়ানোর ক্ষেত্রে ৫ মিনিট একটু জোরে যেতে হবে, পরবর্তি ৫ মিনিট একটু ধীরে, অনেকটা স্বাভাবিক হাঁটার মতো, আমাব পরবর্তি ৫ মিনিট জোরে, এভাবে ৪৫ থেকে ৬০ মিনিট ব্যয়াম করতে হবে।

কিভাবে এই বিশেষ ব্যয়াম কাজ করেঃ 

যখন আমরা স্বাভাবিক গাভে হাঁটি, তখন আমাদের ব্রেন, হার্ট এর নার্ভাস সিস্টেম একটা সিঙ্ক্রোনাইজেশান এর ভিতরে কাজ করে, হঠাৎ ই যখন কোনো গতির পরিবর্তন হয়, তখন, আমাদের ব্রেন এবং নার্ভাস সিস্টেমে পরিবর্তন আসে, প্যারাসিমপ্যাথেটিক সিস্টেম ডাউন রেগুলেটেড হয়ে, সিমপ্যাথেটিক সিস্টেম আপ রেগুলেটেড হয়, ফলে, মাংস পেশী তে রক্ত সঞ্চালন বেড়ে যায়, হার্ট দ্রুত কাজ করে, আর কোষে GLUT 4 রেগুলেটারি প্রোটিন আপ রেগুলেটেড হয়ে রক্তের গ্লুকোজকে কোষের ভিতরে নিয়ে যায়।

এভাবেই কাজটা হয়, কিন্তু একই গতিতে গেলে সাধারনত কাজটা একবারই হয়, আর ইন্টাওরভাল মেথডে ব্যয়াম করলে এটা প্রতিবার গতির পরিবর্তনের সাথে হয়ে থাকে, ফলে কিছু মাস পর আমরা ডায়াবেটিসকে আরো ভালো ভাবে নিয়ন্ত্রিত আকারে পাই, আর সবচেয়ে বড় যেই ব্যপারটা তা হলো, এতে বার বার GLUT 4 ডাউন এবং আপ রেগুলেটেড হওয়ার কারনে কিছু মাস পর থেকে কোষের ইনসুলিন সেনসিটিভিটি ও বাড়তে থাকে,অর্থাৎ অন্যান্য GLUT প্রোটিন গুলাও আস্তে আস্তে কাজ করা শুরু করে!

Loading...

Facebook Comments

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.